‘নতুন চলচ্চিত্র, নতুন নির্মাতা’ একটি কার্যকর এবং প্রয়োজনীয় কর্মসূচি। যা বাংলাদেশের তরুণ চলচ্চিত্র নির্মাতাদের নতুন চলচ্চিত্রকে দর্শকদের সামনে তুলে ধরবে। এই কর্মসূচি বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মকে তাদের সৃজনশীল কর্মপ্রয়াস দর্শকদের সামনে নিয়মিত তুলে ধরার একটি কার্যকর প্ল্যাটফর্ম হিসেবে গড়ে উঠবে। বছরব্যাপী এই উৎসবে নতুন নতুন চলচ্চিত্র নির্মাতা তৈরি হবে এবং তাদের সামাজিক পরিচিতি গড়ে উঠবে। একজন ‘সৃজনশীল মেধাবী তরুণ নির্মাতা’ এই সামাজিক পরিচিতি জাতীয় চলচ্চিত্র-সংস্কৃতির পরিসরে তরুণের টিকে থাকার জমিন তৈরি করবে

প্রতি মাসের সূচিতে থাকবে নতুন চলচ্চিত্র; যা বিষয়বৈচিত্র এবং নিরীক্ষায় ঋদ্ধ হবে বলে আমরা মনে করি। নিয়মিত নতুন নির্মাতার নতুন নতুন কাজ দেখতে পারার এবং তাদের সাথে মতবিনিময়ের মাধ্যমে দায়বদ্ধ রুচিশীল দর্শক তৈরি হবে; যা আমাদের নিজস্ব চলচ্চিত্র সংস্কৃতির বিকাশে খুব বেশি প্রয়োজন। এই কর্মসূচিতে নতুন নির্মাতার চলচ্চিত্র যেমন অংশগ্রহণ করবে ঠিক তেমনি অগ্রজ নির্মাতাও তাঁর নতুন চলচ্চিত্র নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

আমরা বলতে চাই দেশের যে কোনো প্রান্তের; যে কোনো বয়সের চলচ্চিত্র নির্মাতা, যে কোনো ফর্ম্যাটে নির্মিত চলচ্চিত্র নিয়ে এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। উৎসবে স্বল্পদৈর্ঘ্য ও পূর্ণদৈর্ঘ্য, কাহিনী ও প্রামাণ্য, নিরীক্ষা ও এনিমেটেড সব ধরণের চলচ্চিত্রের জন্য দ্বার উন্মুক্ত থাকবে। একজন নির্মাতা একাধিক চলচ্চিত্র এই কর্মসূচিতে জমা দিতে পারবেন। তবে এক মাসে একটির বেশি নয়।



‘নতুন চলচ্চিত্র, নতুন নির্মাতা’ কর্মসূচিটি বাংলাদেশের নবীন চলচ্চিত্রকারদের নির্মিত চলচ্চিত্রের নিয়মিত প্রদর্শনী, দর্শক-নির্মাতা মতবিনিময় এবং বছরব্যাপী প্রদর্শিত চলচ্চিত্রগুলোর মধ্য থেকে সেরা ৩ জন নির্মাতা বাছাইয়ের প্রতিযোগিতামূলক উৎসব।

বছর শেষে উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠানে সেরা ৩ জন নির্মাতাকে পূর্নদৈর্ঘ্য কাহিনীচিত্র বিভাগে ‘জহির রায়হান শ্রেষ্ঠ কাহিনীচিত্র পুরস্কার’, প্রামাণ্য চলচ্চিত্র বিভাগে ‘আলমগীর কবির শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্যচিত্র পুরস্কার’ এবং স্বল্পদৈর্ঘ্য কাহিনী, নিরীক্ষা এবং এনিমেটেড চলচ্চিত্র বিভাগে ‘বাদল রহমান শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র পুরস্কার’ ও সম্মাননা প্রদান করা হবে।

সারাবছরে প্রদর্শনের জন্য নির্বাচিত চলচ্চিত্রের সকল নির্মাতাকে সম্মাননা সনদ প্রদান করা হবে।

৭ সদস্যের জুরি কমিটি এবং আয়োজক সংগঠন প্রতি মাসে জমা হওয়া চলচ্চিত্র থেকে প্রদর্শনীর জন্য চলচ্চিত্র বাছাই করবেন এবং সারাবছর ধরে প্রদর্শিত চলচ্চিত্রগুলো থেকে সেরা নির্মাতা নির্বাচিত করবেন।

বাংলাদেশের যে কোনো চলচ্চিত্র নির্মাতা তাঁর সাম্প্রতিক নির্মিত চলচ্চিত্র নিয়ে এই উৎসবে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। একজন নির্মাতা একাধিক চলচ্চিত্র জমা দিতে পারবেন।

জমাকৃত চলচ্চিত্রের মধ্য থেকে বাছাইকৃত চলচ্চিত্র প্রতি মাসের প্রদর্শনীর জন্য নির্বাচন করা হবে।

প্রতি মাসের শেষ শুক্রবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে বিকাল ৩টা, বিকাল ৫টা এবং সন্ধ্যা ৭টায় ন্যূনতম দর্শনীর বিনিময়ে চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।

প্রদর্শনী শেষে দর্শনীর টাকা নির্মাতাদের হাতে তুলে দেয়া হবে।




যে কোনো ফর্ম্যাটে নির্মিত চলচ্চিত্র এই উৎসবে অংশগ্রহণ করতে পারবে।

স্বাক্ষরসহ পূরণকৃত ফরমটি প্রতি মাসের ১ থেকে ১০ তারিখের মধ্যে চলচ্চিত্রের দুটি ডিভিডি কপিসহ জমা দিতে হবে।

ছবি জমা দেয়ার ফরম্যাট MOV, AVI অথবা DVD হতে হবে।

উৎসবে অংশগ্রহণের জন্য আবেদনকারীকে ফরমের সাথে দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্মনিবন্ধন অথবা পাসপোর্টের ফটোকপি, শিক্ষার্থী হলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচয়পত্রের ফটোকপি সংযুক্ত করে দিতে হবে।

চলচ্চিত্র জমা দেয়ার নিবন্ধন ফরম নিন্মোক্ত ঠিকানা অথবা করে স্বহস্তে পূরণ করে জমা দিতে হবে।

বি.দ্র. স্বাক্ষরবিহীন কোনো ফরম গ্রহণ করা হবে না। সঠিকভাবে পূরণ করা ফরমসহ আপনার চলচ্চিত্রটি অবশ্যই প্রতি মাসের প্রথম ১০ দিনের মধ্যে আমাদের হাতে পৌছাতে হবে। অনুগ্রহ করে উল্লেখিত ফরম্যাটে আপনার চলচ্চিত্রটি জমা দিন।



(বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত)

কক্ষ নং ৭০১, (লিফটের ৬), জাতীয় নাট্যশালা, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী, সেগুনবাগিচা, ঢাকা-১০০০

ফোন: ০১৯৭১ ১০১১০৬, ০১৬৭৫ ৬৪২৭৭৭, ০১৯১২ ২৩১৭৮৫



Please complete all these fields to active download from